ট্রাম্পের নতুন নিষেধাজ্ঞাও আদালতে স্থগিত

সোহেল হোসাইন, নিউইয়র্ক থেকে: ছয় মুসলিম দেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে আগমন নিষিদ্ধ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নতুন নিষেধাজ্ঞাও আদালতের আদেশে স্থগিত হয়ে গেছে। বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। তার কয়েক ঘণ্টা আগেই হাওয়াই অঙ্গরাজ্যের ফেডারেল কোর্ট এ নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে স্থগিতাদেশ জারি করেছে। আইনি লড়াই চলছে আরও তিন অঙ্গরাজ্যে। আদালতের রায়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তার মতে, নজিরবিহীন এ কাণ্ডের মাধ্যমে আদালত তার সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছে। খবর বিবিসি ও সিএনএনের। ৬ মার্চ সংশোধিত ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেন ট্রাম্প। এতে বলা হয়, ইরান, লিবিয়া, সোমালিয়া, সুদান, সিরিয়া ও ইয়েমেনের যেসব নাগরিকের বৈধ ভিসা নেই, তারা আগামী ৯০ দিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করতে পারবেন না। সেই হিসাবে আগের ২৭ জানুয়ারি জারি করা প্রথম তালিকা থেকে বাদ পড়ে ইরাক। আগের নিষেধাজ্ঞার মতোই শরণার্থী গ্রহণ কার্যক্রম বন্ধ থাকবে, তবে তা ১২০ দিনের জন্য। নতুন নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবেন সংশ্লিষ্ট ৬টি মুসলিম দেশের গ্রিন কার্ডধারীরা। ১৬ মার্চ থেকে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হওয়ার কথা ছিল।
৭ মার্চ নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে আদালতের দ্বারস্থ হন হাওয়াইয়ের অ্যাটর্নি জেনারেল ডগলাস চিন। সংবিধান পরিপন্থী উল্লেখ করে এ নিষেধাজ্ঞার ওপর স্থগিতাদেশ চান। পরে এর সঙ্গে যোগ দেয় ওয়াশিংটন, অরেগন ও ম্যাসাচুসেটস অঙ্গরাজ্য। ৮ মার্চ হাওয়াই ডিস্ট্রিক্ট কোর্টের বিচারক ডেরিক ওয়াটসন এ বিষয়ে শুনানির নির্দেশ দেন। শুনানি শেষে কার্যকর হওয়ার আগ মুহূর্তে এ নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে স্থগিতাদেশ দেন হাওয়াইয়ের বিচারক।
আদালতের মতে, এ নিষেধাজ্ঞা মার্কিন আইন পরিপন্থী। এছাড়া রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা রক্ষার কথা বলে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলেও প্রশাসন এর পক্ষে পর্যাপ্ত যুক্তি দেখাতে ব্যর্থ হয়েছে। তাই এর বিরুদ্ধে স্থগিতাদেশ দেন বিচারক ডেরিক ওয়াটসন। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এ স্থগিতাদেশকে ‘আদালতের নজিরবিহীন সীমালংঘন’ অ্যাখ্যায়িত করেছেন। বুধবার সন্ধ্যায় টেনেসির ন্যাশভিলে সমর্থকদের নিয়ে এক সমাবেশ শুরুর আগে ট্রাম্প বলেন, হাওয়াইয়ের আদালতের এ আদেশ যুক্তরাষ্ট্রকে ‘আরও দ–র্বল’ করবে। এ বিষয়ে আইনি লড়াই চালিয়ে যাওয়ারও অঙ্গীকার করেছেন ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, ‘এর জন্য যতদূর যেতে হয় যাব, এমনকি সুপ্রিমকোর্টেও। এবং আমরা অবশ্যই জিতব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *