‘র‌্যাব ক্যাম্পে হামলার দায় স্বীকার আইএসের’

শামীম চৌধুরী/ বাবুল বিক্রমপুরী/ সহিদুল ইসলাম রেজা, টাইমস আই বেঙ্গলী ডটকম, ঢাকা: রাজধানীর আশকোনায় র‍্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণের দায় স্বীকার করেছে তথাকথিত ইসলামিক স্টেট (আইএস) গোষ্ঠি। আইএসের সংবাদ মাধ্যম আমাক-এর বরাত দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছে বিবিসি বাংলা। প্রতিবেদনে বলা হয়, আমাক মেসেজিং অ্যাপ টেলিগ্রামের মাধ্যমে এই হামলার ঘটনার দায়িত্ব স্বীকার করেছে। শুক্রবার দুপুরে আশকোনায় র‌্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরের অস্থায়ী ক্যাম্পে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটায় এক জঙ্গি। এতে তার শরীর ছিন্ন-ভিন্ন হয়ে যায়। এ সময় র‌্যাবের ২ সদস্য আহত হন। তারা আশঙ্কামুক্ত।
অপর একটি সূত্র জানায়, আশকোনায় হজ ক্যাম্প সংলগ্ন র‌্যাবের অস্থায়ী ক্যাম্পে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত যুবকের কাছ থেকে একটি কালো ব্যাগ উদ্ধার করেছে র‌্যাব। নিহত যুবকের কাঁধে ওই কালো ব্যাগটি ছিল। ব্যাগের ভিতর কিছু জিনিস পাওয়া গেছে। পুলিশ তা খতিয়ে দেখছে। নিহতের পরনে ছিল সাদা চেক শার্ট ও কালো প্যান্ট। হামলাকারীর মাথায় ক্যাপ পরা ছিল। বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল ব্যাগটি পরীক্ষা করে দেখছে। এ ছাড়া মরদেহের পাশে একটি বোমা পাওয়া গেছে। বোমাটি নিষ্ক্রিয় করার কাজ করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বোমা নিষ্ক্রিয় করার সময় বিস্ফোরণের শব্দে যাতে কেউ ভয় না পান এ জন্য এলাকায় মাংকিং করা হচ্ছে। র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান এ তথ্য জানিয়েছেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিহত যুবকের পরিচয় জানার চেষ্টা করছে। পুলিশের ক্রাইম সিন ইউনিট মরদেহ ও আশেপাশের এলাকা ঘিরে রেখেছে। র‌্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, হামলাকারী কোন জঙ্গি গোষ্ঠীর সদস্য তা এখনও জানা যায়নি। তবে সে যে জঙ্গি গোষ্ঠীর সদস্য তা সন্দেহ করা হচ্ছে।
হামলার পর গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, দুই র‌্যাব সদস্য আত্মঘাতী হামলাকারী জঙ্গিকে চ্যালেঞ্জ করার পর জঙ্গি পেছনে ঘুরে সুইসাইডাল ভেস্টের বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় চ্যালেঞ্জ করা র‌্যাবের দুই সদস্য ৪ থেকে ৫ ফুট দূরে ছিলেন। তারা জানান, জঙ্গির ছিন্নভিন্ন লাশের পাশেই একটি কালো ট্রাভেল ব্যাগ পড়ে থাকতে দেখা যায়। তবে এই কালো ব্যাগে কী আছে তা এখনই জানা সম্ভব হচ্ছে না।
শুক্রবার বেলা ১টার দিকে রাজধানীর আশকোনায় হজ ক্যাম্পের ভেতরে অবস্থিত র‌্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরে আত্মঘাতী বোমার এ বিস্ফোরণ ঘটে। এতে আত্মঘাতী হামলাকারী নিহত হয়েছেন। র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সরোয়ার বিন কাশেম বলেছেন, ‘জুমার নামাজের আগে ২৫ থেকে ৩০ বছর বয়সী ওই যুবক ক্যাম্পের সামনে বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়।’
র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান বলেছেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, আশকোনায় র‌্যাবের অস্থায়ী ক্যাম্পে হামলাটি কোনো জঙ্গিগোষ্ঠীই চালিয়েছে। তবে কারা এ হামলা চালিয়েছে এখনই তা বলা যাচ্ছে না।

আবারও সুইসাইডাল ভেস্ট: আবারও সুইসাইডাল ভেস্টের মাধ্যমে আত্মঘাতী হলো এক জঙ্গি। গতবছর ডিসেম্বরে আশকোনায় হাজি ক্যাম্পের পাশের একটি বাড়িতে সুইসাইডাল ভেস্টের মাধ্যমে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটায় এক নারী জঙ্গি। ওই ঘটনার পর শুক্রবার ফের এই একই কায়দায় আত্মঘাতী হামলা চালালো এক জঙ্গি। এদিকে বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে দুটি জঙ্গি আস্তানার একটিতে অভিযান চালানোর সময় পুলিশ এক আত্মঘাতী নারীসহ জঙ্গি দম্পতিকে আটক করে। সুইসাইডাল ভেস্ট দেখতে ফতুয়া বা হাতা কাটা গেঞ্জির মতো। এটা বেল্টের মতোও হয়। যা জঙ্গি-সন্ত্রাসী আত্মঘাতী হামলা চালাতে ব্যবহার করে। এই পোশাক থাকে বিস্ফোরক ভর্তি।
২০১৬ সালের ২৪ ডিসেম্বর রাজধানীর আশকোনায় হাজি ক্যাম্পের কাছে একটি বাড়িতে কোমরে ‘সুইসাইডাল ভেস্ট’ পরে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিলেন এক নারী জঙ্গি। বাড়ির ভেতরে থাকা তিনজনকে আত্মসমর্পণ করতে বললে বোকরা পরা ওই নারী ধীরে ধীরে হেঁটে ঘরে থেকে বের হন এবং বিস্ফোরণ ঘটান। তখন তাকে হাত উঁচু করতে বললে তিনি তা করেননি। বোরকা পরা থাকায় বোঝা যাচ্ছিল না তার কোমরে সুইসাইডাল ভেস্ট ছিল কিনা।
এর আগে ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে মিরপুরের একটি জঙ্গি আস্তানা থেকে কয়েকটি সুইসাইডাল ভেস্ট উদ্ধার করেছিল পুলিশ। এছাড়া চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর ঘাঁটি বানৌজা ঈঁসা খানের ভেতরে বানৌজা পতেঙ্গা মসজিদে বিস্ফোরণের পর আটক আবদুল মান্নানের কাছ থেকে বোমাসহ কয়েকটি সুইসাইডাল ভেস্ট উদ্ধার করা হয়।
শুক্রবার রাজধানীর আশকোনায় হজ ক্যাম্পের ভেতরে অবস্থিত র‌্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরে আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণ ঘটালে এতে আত্মঘাতী হামলাকারী নিহত হন। পরে র‌্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়, জঙ্গি সুইসাইডাল ভেস্ট নিয়ে হামলা চালাতে নির্মাণাধীন সদর দফতরে প্রবেশের চেষ্টা করলে ‍দুজন র‌্যাব সদস্য তাকে চ্যালেঞ্জ করে। এসময় জঙ্গি বিস্ফোরণ ঘটালে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

আত্মঘাতী জঙ্গির ছবি প্রকাশ: আশকোনায় র‌্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরে আত্মঘাতী হামলাকারীরর মরদেহরাজধানীর আশকোনায় র‌্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরে আত্মঘাতী হামলাকারীর শরীরে থাকা বোমার বিস্ফোরণে তার শরীর ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। অন্যান্য সময়ে জঙ্গি হামলায় অংশ নেওয়া জঙ্গিদের পরনের পোশাকের মতো এই হামলাকারীর পরনেও ছিল কালো রঙের পাঞ্জাবি। এই হামলাকারী কোন জঙ্গিগোষ্ঠীর সদস্য, তা এখনও জানতে পারেনি র‌্যাব। তার নাম-পরিচয়ও জানা যায়নি। হামলাকারীর লাশের একটি ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে ওই আত্মঘাতী হামলার প্রায় দুই ঘণ্টা পর দুপুর ৩টার দিকে এক ব্রিফিংয়ে হামলাকারী সম্পর্কে তথ্য দেন র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান।
ব্রিফিংয়ে মুফতি মাহমুদ বলেন, ‘আমাদের বাউন্ডারি ওয়ালের নিচে দিয়ে দুপুর ১টার দিকে অপরিচিত একজন প্রবেশ করলে তাকে চ্যালেঞ্জ করা হয়। এসময় সে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে এবং সঙ্গে সঙ্গে একটা বিস্ফোরণ হয়। তার সঙ্গে যে বোমা ছিল সেই বোমার বিস্ফোরণে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।’মুফতি মাহমুদ জানান, বোমার বিস্ফোরণের পর তাৎক্ষণিকভাবে মৃত্যু হয় ওই জঙ্গির। এসময় ওই জঙ্গির দেহ ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়। তার কোনও পরিচয় কিংবা সে কোন জঙ্গি গোষ্ঠীর সদস্য, তা জানা যায়নি। তার সঙ্গে কোনও লিফলেট পাওয়া যায়নি। মুফতি মাহমুদ আরও জানান, ওই হামলাকারীর শরীরে ছিল কালো পাঞ্জাবি।
নিহত আত্মঘাতী হামলাকারীর একটি ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। ওই ছবিতে দেখা যায়, হামলাকারীর গলার নিচ থেকে বাকি শরীরে কঙ্কাল-কাঠামো ছাড়া বলতে গেলে কিছুই অবশিষ্ট নেই। ওই ছবি কোনোভাবেই প্রকাশযোগ্য নয় বলে ছবির বাকি অংশটি ঝাঁপসা করে কেবল মুখমণ্ডলের ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। আত্মঘাতী এই হামলায় র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছেন। তারা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাদের অবস্থা আশঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক।

সীতাকুণ্ডে অভিযানের ২৭ ঘণ্টার মাথায় ঢাকায় আত্মঘাতী জঙ্গি হামলা: চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে জঙ্গি আস্তানায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান সমাপ্তির ২৭ ঘণ্টার মাথায় ঢাকার আশকোনায় র‌্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরে আত্মঘাতী বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে। গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার মিলিয়ে সীতাকুণ্ডে টানা ১৯ ঘণ্টার শ্বাসরুদ্ধকর জঙ্গিবিরোধী অভিযানে নারীসহ নিহত হয় চার জঙ্গি ও এক শিশু। সেখানে আত্মঘাতী বিস্ফোরণে এক নারীসহ দুই জঙ্গির হাত-পা ও মাথা ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়। এর সাতাশ ঘণ্টা পার হতে না হতেই ঢাকায় আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ ঘটালো এক জঙ্গি। শুক্রবার রাজধানীর আশকোনায় হজ ক্যাম্পের ভেতরে অবস্থিত র‌্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরে এই আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণ ঘটেছে। এতে আত্মঘাতী হামলাকারী নিহত হয়েছে। র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সরোয়ার বিন কাশেম বলেছেন,‘জুমার নামাজের আগে ২৫-৩০ বছর বয়সী অপিরচিত এক যুবক ক্যাম্পের সামনে বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়।’আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধারণা, আত্মঘাতী ওই জঙ্গির শরীরে সুইসাইডাল ভেস্ট বাঁধা ছিল।এর আগে গত বুধবার চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার প্রেমতলায় বেলা সাড়ে তিনটা থেকে ছায়ানীড় নামে একটি বাড়ি ঘিরে রাখে পুলিশ। এরপর বৃহস্পতিবার সকাল ছয়টায় ছায়ানীড়ের ভেতরে পুলিশের সোয়াট টিমের নেতৃত্বে অপারেশন অ্যাসল্ট সিক্সটিন অভিযান শুরু হয়। অভিযান শুরুর তিন ঘণ্টা পর সকাল সাড়ে নয়টায় বাড়ি থেকে প্রথম একটি শিশুকে বের করে আনা হয়।এরপর একে একে আটকে পড়া তিনটি পরিবারের ২০ জনকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। অভিযানের ব্যাপ্তি ছিল চার ঘণ্টা।এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই আজ শুক্রবার আশকোনাতে র‌্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরে আত্মঘাতী হামলা চালায় এক জঙ্গি।
তিন মাস আগেও এই আশকোনাতেই জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালিয়েছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। গতবছর ২৪ ডিসেম্বর রাজধানীর আশকোনার জঙ্গি আস্তানায় প্রায় ১৬ ঘণ্টার পুলিশি অভিযানে জঙ্গি নেতা তানভীর কাদেরীর ছেলেসহ দুজন নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটে। দক্ষিণখানের পূর্ব আশকোনায় হজ ক্যাম্পের কাছে তিনতলা বাড়ি সূর্য ভিলায় অভিযান চালানো হয়। ওই বাড়িতে আত্মঘাতী বিস্ফোরণে নিহত দুজনের একজন হলেন জঙ্গিনেতা তানভীর কাদেরীর ১৪ বছর বয়সী ছেলে। অন্যজন পলাতক জঙ্গি নেতা রাশেদুর রহমান সুমনের স্ত্রী শাকিরা বলে জানিয়েছিল পুলিশ কর্মকর্তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *