প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে অভিভাবকদের সহযোগিতা চেয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী

টাইমস আই বেঙ্গলী ডটকম, ঢাকা: প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে অভিভাবকদের সহযোগিতা চেয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেন, ‘শুধু শিক্ষকরা নয়; কলেজের প্রিন্সিপাল পর্যন্ত প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত থাকে। এমন হলে কীভাবে প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাব? আপনারা যারা অভিভাবক রয়েছেন তারা আবার প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়ে সহযোগিতা করেন না।’
পরীক্ষা শুরুর আগে রোববার সকালে ঢাকা কলেজ কেন্দ্রে উপস্থিত অভিভাবকদের সাথে সাক্ষাৎকালে এসব কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী।নাহিদ বলেন, ‘বিজি প্রেস থেকে অনেক কষ্টে প্রশ্নপত্র ফাঁস করা বন্ধ করেছি। কিন্তু শিক্ষকরা টাকার জন্য এমসিকিউর উত্তর বলে দেন। তারাই প্রশ্নপত্র ফাঁস করার পথে পা বাড়িয়েছে। অসাধু শিক্ষকদের চিহ্নিত করার প্রচেষ্টা চলছে।’আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রসা ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে সারাদেশে একযোগে উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষা শুরু হয়েছে সকাল ১০টায়। এ পরীক্ষা শেষ হবে দুপুর ১টায়।
সাধারণ শিক্ষা বোর্ড ও ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ পরীক্ষার্থীদের প্রথম দিনে বাংলা (আবশ্যিক) প্রথম পত্র পরীক্ষা। এবার ১১ লাখ ৮৩ হাজার ৬৮৬ পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ নিচ্ছে। গত বছরের তুলনায় এ বছর উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় ৩৪ হাজার ৯৮২ শিক্ষার্থী পরীক্ষায় কম অংশ নিয়েছে। গত বছর পরীক্ষার্থী ছিল ১২ লাখ ১৮ হাজার ৬২৮ জন।
এ বছর পরীক্ষায় অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছাত্র ৬ লাখ ৩৫ হাজার ৬৯৭ জন এবং ছাত্রী ৫ লাখ ৪৭ হাজার ৯৮৯ জন। আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ৯ লাখ ৮২ হাজার ৭৮৩ জন, মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে ৯৯ হাজার ৩২০ জন, কারিগরি বোর্ডের অধীনে ৯৬ হাজার ৯১৪ জন এবং ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজে চার লাখ ৬৬৯ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।
এবার আট হাজার ৮৬৪টি প্রতিষ্ঠানে, দুই হাজার ৪৯৭টি কেন্দ্রের মাধ্যমে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া বিদেশে ৭টি কেন্দ্রে ২৭১ পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। এ বছর ২৬টি বিষয়ের ৫০টি পত্রের সৃজনশীল পদ্ধতিতে পরীক্ষা হবে। গত বছর হয়েছিল ১৯টি বিষয়ের ৩৬টি পত্রের।
দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, সেরিব্রাল পলসিজনিত প্রতিবন্ধী ও যাদের হাত নেই এমন প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীরা শ্রুতিলেখক নিয়ে পরীক্ষায় অংশ নিতে পারছে। তাদের জন্য ২০ মিনিট অতিরিক্ত সময় বরাদ্দ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *