টাইগারদের ‘তিন নম্বর’ বিপদসংকেত

টাইমস আই বেঙ্গলী ডটকম, ঢাকা: বাংলাদেশ দলের তিন নম্বর পজিশনে কোনো ব্যাটসম্যানকেই শতভাগ সেট করতে পারেনি টিম ম্যানেজমেন্ট। বিভিন্ন সময়ে বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়কে ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে তিনে ব্যাটিং করানো হয়। তাতে খুব একটা সাফল্য আসেনি। শেষমেশ সেই জায়গাটা পেয়ে ভালোই আলো ছড়াচ্ছিলেন জাতীয় দলের সুপারম্যান খ্যাত সাব্বির রহমান। পজিশন পাল্টানোর পর সাব্বিরের ব্যাটিংয়ে আসে নৈপুণ্য। বাড়তে থাকে রান তোলার গড়ও। কিন্তু হঠাৎ করেই ভিন্ন রূপে দেখা যাচ্ছে সাব্বিরকে। গেল কয়েকটা ম্যাচে ব্যাট হাতে অন্য এক সাব্বিরকে দেখা যাচ্ছে। তার সর্বশেষ চার ইনিংস এমন-০, ১, ৩৫, ৬৫ এবং ০। হঠাৎ করে সাব্বিরের ফর্মহীনতা ভাবিয়ে তুলছে ক্রিকেটবোদ্ধাদের।

এ নিয়ে সাবেক বিসিবি পরিচালক খন্দকার জামিল উদ্দিন ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘তিন নম্বর পজিশনটা দলের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমার মনে হয় তিন নম্বরে সাব্বির নয়, মোসাদ্দেককে নামানো উচিত। মোসাদ্দেক ধরে খেলে ইনিংস নির্মাণ করতে জানে।’

‘সাব্বির সব সময় মেরে খেলতে চায়। তাই ওর জন্য পাঁচ বা ছয় নম্বর স্থানটাই উপযুক্ত। এটা দলের জন্য ভালো ব্যাপার হবে বলে মনে করি। মিরাজ উইকেট ধরে খেলে। তার হাতে খুব একটা স্ট্রোক নেই। অন্যদিকে সাব্বির মেরে খেলে। তাই সাব্বির পাঁচ বা ছয় নম্বরে নামলে দলে ভালো কম্বিনেশন গড়ে উঠবে।’ মন্তব্য খন্দকার জামিলের।

এদিকে বিশ্বস্ত সূত্র থেকে জানা যাচ্ছে, সাব্বিরের নিষ্প্রভ ব্যাটিংয়ে তিন নম্বর পজিশনটা নড়চড় করতে পারে টিম ম্যানেজমেন্ট। অবশ্য আরও দুই একটা ম্যাচ সুযোগ পেতে পারেন সাব্বির। তাতেও যদি একই রূপ দেখা যায় তবে কোপে পড়তে পারেন সাব্বির! তিনে উঠে আসতে পারেন মুশফিকুর রহিম কিংবা তরুণ তুর্কি মোসাদ্দেক হোসেন। বলা যায়, বাংলাদেশ দলের তিন নম্বর ব্যাটিং অর্ডারে ‘বিপদসংকেতই’ চলছে।

আজ বিকাল সাড়ে তিনটায় স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে মাশরাফিদের চ্যাম্পিয়নস ট্রফির যাত্রা। ৫ জুন ইংল্যান্ডের ওভালে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে টাইগারদের প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া। আর গ্রুপ পর্বের নিজেদের শেষ ম্যাচ ৯ জুন কার্ডিফের সুফিয়া গার্ডেনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ।

এদিকে আজ থেকে শুরু হয়ে ১৮ জুন পর্যন্ত ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসে চলবে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির জমজমাট লড়াই। ওয়ানডে ক্রিকেটের শীর্ষ আট দল অংশ নিচ্ছে এবারের প্রতিযোগিতায়। আগের সাতবারের আসরে বিশ্ব ছয়টি দলকে ট্রফি উঁচিয়ে ধরতে দেখেছে। যার মধ্যে অস্ট্রেলিয়া দু’বার আর বাকি পাঁচটি দল একবার করে নিয়েছে ট্রফির স্বাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *