ইদলিবে রাসায়নিক হামলা ছিল আসাদ-বিরোধী উস্কানি: পুতিন

টাইমস আই বেঙ্গলী ডটকম, ঢাকা: রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, তার সরকার এ ব্যাপারে পুরোপুরি নিশ্চিত হয়েছে যে, সিরিয়ার ইদলিব প্রদেশে সাম্প্রতিক প্রাণঘাতী রাসায়নিক হামলা ছিল প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের বিরুদ্ধে একটি উস্কানি।
তিনি শুক্রবার সেন্ট পিটার্সবার্গে আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ফোরামে দেয়া বক্তৃতায় এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, “আমরা সম্পূর্ণ নিশ্চিত যে, এটি ছিল একটি উস্কানি। আসাদ এ অস্ত্র প্রয়োগ করেননি। ওই হামলা তারাই চালিয়েছে যারা এ ধরনের হামলার জন্য আসাদকে দায়ী করতে চায়।”

সিরিয়ার ইদলিব প্রদেশের খান শাইখুন শহরে গত ৪ এপ্রিল রাসায়নিক গ্যাস হামলায় অন্তত ৮০ ব্যক্তি নিহত হয়। পশ্চিমা দেশগুলো ওই হামলার জন্য সিরিয়া সরকারকে দায়ী করে। কিন্তু দামেস্ক ওই অভিযোগ কঠোর ভাষায় প্রত্যাখ্যান করে। সিরিয়া সরকার জানায়, ২০১৩ সালে জাতিসংঘের রাসায়নিক অস্ত্র নির্মূল বিষয়ক তদারকি সংস্থা দেশটির পরমাণু অস্ত্র নির্মূল হয়েছে বলে স্বীকৃতি দেয়ার পর থেকে দামেস্কের হাতে আর কোনো রাসায়নিক অস্ত্র নেই।

অবশ্য খান শাইখুনে রাসায়নিক হামলার তিনদিন পর দামেস্কের অস্বীকৃতি সত্ত্বেও দেশটির একটি বিমানঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় আমেরিকা।  সিরিয়ার হোমস প্রদেশের শাইরাত বিমানঘাঁটিতে ভূমধ্যসাগরে মোতায়েন দু’টি রণতরী থেকে ৫৯টি টমাহক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে মার্কিন বাহিনী। ওয়াশিংটন তখন দাবি করে, খান শাইখুনের কথিত রাসায়নিক হামলা ওই বিমান ঘাঁটিটি থেকে চালানো হয়েছিল।

সেন্ট পিটার্সবার্গে প্রেসিডেন্ট পুতিন এ সম্পর্কে বলেন, ওই বিমানঘাঁটি থেকে যদি রাসায়নিক অস্ত্রবাহী বিমান আকাশে উড়ত তাহলে  আধুনিক প্রযুক্তির সাহায্যে তা শনাক্ত করা যেত। তিনি আরো জানান, রাশিয়ার গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর কাছে এমন তথ্য রয়েছে যে, প্রেসিডেন্ট বাশার আসাদকে দায়ী করতে অদূর ভবিষ্যতে সিরিয়ার আরো এলাকায় এ ধরনের রাসায়নিক হামলা চালানো হতে পারে।
সূত্র: পার্সটুডে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *