দক্ষিণখানে সাংবাদিক শামীম চৌধুরীকে হুমকি দিয়েছে সন্ত্রাসী সুমন, থানায় জিডি

টাইমস আই বেঙ্গলী ডটকম, বিশেষ প্রতিনিধি, ঢাকা: রাজধানীর দক্ষিণখানের আশকোণা মেডিকেল রোড় (উচ্চারটেক) এলাকায় ২৩ জুন ২০১৭ ইং তারিখ শুক্রবার দুপুর আনুমানিক ১২টায় স্হানীয় যুবক সন্ত্রাসী সুমন পিতা-সিরাজ মিয়া, সাংবাদিক শামীম চৌধুরীকে হুমকি দিয়েছে বলে খবর পাওয়া যায়। এ বিষয়ে খোজ নিয়ে জানা যায়,অত্র এলাকার স্যুয়ারেজ লাইনের পানি আটক রাখায় এলাকার সমাজ সেবক মমতাজ উদ্দিন একই এলাকায় বসবাসকারী সাংবাদিক শামীম চৌধুরীকে মোবাইল ফোনে যথাক্রমে ০১৬৭০০৮০৯২৬ থেকে ০১৭১০৬৫৮৪২২ নাম্বারে কল দিয়ে ঘটনাস্হলে আসতে বলে। সাংবাদিক তাৎক্ষনিক ঘটনাস্হলে গিয়ে স্হানীয় যুবক সুমনের কাছে জানতে চাইলে,সুমন,সাংবাদিকের শামীম চৌধুরী উপর ক্ষিপ্ত হয়ে মারমুখি আচরনসহ দাঙ্গাবাজ ও সন্ত্রাসীর ন্যায় আক্রমন করার চেষ্টা করলে উপস্হিত লোকজনের সহযোগীতায় সাংবাদিক প্রাণে বেঁচে যায়। আরও জানা যায়,সুমনের অত্যাচারে দীর্ঘ দিন থেকে এলাকাবাসী অতিষ্ট। মাদক ও নারী ব্যবসা থেকে শুরু করে এলাকায় চাঁদাবাজি, চিনতাই, চুরি, ডাকাতি, গুম, খুনের সাথে জড়িত রয়েছে বলে জানা যায়। এ বিষয়ে আরও জানা যায়, একটি দুষকৃতিকারী চক্র প্রতিহিংসা মুলক অত্র এলাকার স্যুয়ারেজ লাইনের পানি আটক রাখায় জনগণের মধ্যে টান টান উত্তেজনা দেয়। ২৩ জুন শুক্রবার দুপুর আনুমনিক ১২টায় আশকোণা (উচ্চারটেক) এলাকায় স্হানীয় লোকজনের উদ্যোগে স্যুয়ারেজ লাইন পরিস্কারের কাজ চলাকালীন সময় স্হানীয় সন্ত্রাসী যুবক সুমন স্যুয়ারেজ লাইনে কাজ করতে বাধা দেয়। আরও জানা যায়,পরে একই এলাকায় বসবাসকারী পুলিশের এস.আই শামীম (নয়ন) পিতা-আবদুল মান্নান (পাঠান) ঘটনাস্হলে এসে সন্ত্রাসী সুমনের পক্ষ নিয়ে সাংবাদিক শামীম চৌধুরীকে বলে আপনি এখানে কথা বলতে আসছেন কেন? কোন কথা না বলে আপনি এখান থেকে চলে যান। আমি বলছি স্যুয়ারেজ লাইন বন্ধ থাকবে। প্রয়োজনে স্যুয়ারেজ লাইন বন্ধ করে দেওয়া হবে। তখন সাংবাদিক শামীম চৌধুরী এস.আই শামীমের কাছে জানতে চান,কোন আইনের ক্ষমতার বলে আপনি এ ধরনের কথা বলছেন,দয়া করে বলবেন কি? এ সময় সাংবাদিক শামীম চৌধুরীর প্রশ্নের জবাব না দিয়ে এস.আই শামীম এড়িয়ে যান। এ বিষয়ে সাংবাদিক তার জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে দক্ষিণখান থানায় একটি জিডি দায়ের করেন। জিডি নং-১৪১৯ তারিখ-২৩/০৬/২০১৭ইং।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *