মালিকের দায় শ্রমিকদের উপর চাপানোর চেষ্টা

টাইমস আই বেঙ্গলী ডটকম, বিশেষ প্রতিনিধি, ঢাকা: গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কাশিমপুর নয়াপাড়ায় ‘মাল্টি ফ্যাবস লিমিটেড’ পোশাক কারখানায় মেয়াদোত্তীর্ণ বয়লার বিস্ফোরণের নিহতদের নাম উল্লেখ করে মামলা করেছে পুলিশ। গত মঙ্গলবার রাতে জয়দেবপুর থানার অধীন চক্রবর্তী পুলিশ ক্যাম্পের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) আবদুর রশিদ বাদী হয়ে জয়দেবপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন। আর বহাল তবিয়তে রয়েছে মেয়াদোত্তীর্ণ বিস্ফোরিত বয়লারের মালিকরা। মামলায় নাম উল্লেখ থাকা আসামিরা হলেন বয়লার অপারেট আব্দুস সালাম, এরশাদ হোসেন ও মনছুরুল হক। তারা বিস্ফোরণে নিহত হয়েছেন। এছাড়া অজ্ঞাত পরিচয় আরও ৮-১০ জনকে আসামি করা হয়েছে। মামলার এজাহারে বলা হয়, বয়লারের মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়া ও ঝুঁকিপূর্ণ জানার পরও আসামিরা পরস্পরের যোগসাজশে তা চালু করেন। তাদের বিরুদ্ধে ৩০২, ৩০৭, ৩২৬, ৩৩৬, ৩৩৮ ও ৪২৭ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।
শ্রমিক নিরাপত্তা ফোরামের সদস্য সচিব সৈয়দ সুলতান উদ্দিন আহম্মেদ গতকাল বুধবার দৈনিক জনতাকে বলেন, বিস্ফোরণ পরবর্তীতে গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্টে দায়িত্বে অবহেলার জন্যে মালিককে দায়ী করা হলেও তাদের বিরুদ্ধে মামলা না করে উল্টো নিহত শ্রমিকদের বিরুদ্ধে মামলা করে পুলিশ যার নিন্দা জানানো ভাষা আমাদের নেই। মূলত মালিকের দায় শ্রমিকদের উপর চাপানোর অপচেষ্টা লিপ্ত পুলিশ। পুলিশের এমন ভূমিকাকে তিনি ঔদ্ধ্যত্বপূর্ণ অভিহিত করে বলেন এর নিন্দা জানানো ভাষা আমাদের নেই। এর ফলে শ্রম ও শিল্প খাতে আস্থাহীনতা সৃষ্টি হবে বলে মনে করেন তিনি।এব্যাপার মামলার বাদী এএসআই আবদুর রশিদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার নির্দেশনা অনুসারে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।
এ বিষয়ে জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, মামলায় যে ৩ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে, তাদের জন্যই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। এ জন্য আইনি প্রক্রিয়া অনুযায়ী তাদের আসামি করা হয়েছে। এজন্য কি মালিক কোনোভাবে দায়ী নয় এমন প্রশ্নের কোনো উত্তর মেলেনি।
গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় কাশিমপুর এলাকার নয়াপাড়ার মালটিফ্যাবস পোশাক কারখানায় বয়লার বিস্ফোরণ ঘটে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার পর্যন্ত ১৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া নিখোঁজ রয়েছেন ৩ জন। আহত হয়েছেন ৫৩ জন।
গত ২৪ জুন বয়লারটি মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যায়। এর পরও কর্তৃপক্ষ সেটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করার উদ্যোগ নেয়নি। শনিবার থেকে সেটি চালানো হচ্ছিল বলে জানিয়েছে আহত শ্রমিকরা। তারা বলেছেন, মালিকের অবহেলার কারণেই মেয়াদোত্তীর্ণ বয়লারের বিস্ফোরণ ঘটে। যার ফলে এতোগুলো শ্রমিকের মৃত্যু হয়। আর যারা আহত হয়েছেন তাদের মধ্যে অনেকেই কর্যক্ষমতা হারিয়েছেন।

বয়লার পরিদর্শক কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে গাজীপুর জেলা প্রশাসনের গঠন করা তদন্ত কমিটির প্রধান ও গাজীপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. রাহেনুল ইসলাম জানান, গত ২৪ জুন পর্যন্ত এ বয়লারটির মেয়াদ ছিল। কিন্তু এরপর বয়লারটি নবায়ন করা হয়নি। তিনি বলেন, সামান্য কয়েক দিনের জন্য এমন দুর্ঘটনা ঘটবে, এটা আমরা মনে করি না। তারপরও এটি প্রধানসহ ৭টি কারণকে সামনে রেখে আমরা তদন্ত শুরু করেছি। এ কমিটিকে বিস্ফোরণের কারণ অনুসন্ধান, দায়ী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করা, ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণের পাশাপাশি ভবিষ্যতে এ ধরনের দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সুপারিশ দিতে বলা হয়েছে ৭ কার্যদিবসের মধ্যে।

উল্লেখ্য, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কাশিমপুরের নয়াপাড়ায় ঐ কারখানার বয়লার সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে বিস্ফোরিত হলে ৪ তলা ভবনের একপাশে এক থেকে দোতলা পর্যন্ত ধসে পড়ে। বয়লারটি বিস্ফোরিত হয়ে ১৩ জনের মৃত্যু হয়। এছাড়া নিখোঁজ রয়েছেন ৩ জন। আহত হয়েছেন ৫৩ জন।

গাজীপুরে মাল্টিফ্যাবস গার্মেন্টসে বয়লার বিস্ফোরণের ঘটনায় মৃত ৩ শ্রমিকের বিরুদ্ধে মামলা করায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে শ্রমিক নিরাপত্তা ফোরাম। ফোরামের সদস্য সচিব প্রেরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বয়লার বিস্ফোরণের ঘটনায় মৃত ৩ শ্রমিকের বিরুদ্ধে মামলা করায় তীব্র নিন্দা জানানোর পাশাপাশি অবিলম্বে এই মামলা প্রত্যাহারপূর্বক প্রকৃত দায়ীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *