শাহজালাল বিমানবন্দরের আগুন নিয়ন্ত্রণে

টাইমস আই বেঙ্গলী ডটকম, ঢাকা: হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। শুক্রবার দুপুর ১টা ৩৭ মিনিটে টার্মিনাল ভবনের তৃতীয় তলায় সৌদি এয়ারলাইন্সের অফিসে আগুন লাগে। প্রায় দেড় ঘণ্টা চেষ্টার পর ফায়ার সার্ভিসের ১১টি ইউনিট বেলা ৩টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। বিমানবন্দরের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা (সিএসও) রাশিদা সুলতানা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বৈদ্যুতিক শট সার্কিট থেকে এই আগুনের সূত্রপাত হয়। তবে অগ্নিকাণ্ডে কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। রাশিদা সুলতানা আরও জানান, ফ্লাইট অবতরণ স্বাভাবিক রয়েছে। তবে উড্ডয়ন সাময়িক বন্ধ রয়েছে।
ঘটনা স্থল থেকে টাইমস ২৪ ডটনেটের সিনিয়র রিপোর্টার রাজুখান জানান, হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে মূল ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা পলাশ চন্দ্র মোদক জানান, শুক্রবার বেলা ১টা ৩৬ মিনিটে অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিট অগ্নিনির্বাপণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বিমানবন্দরে আগুন লাগার খবরে মূল ভবনের সব কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।
এ ব্যাপারে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও বক্তব্য দেয়নি। দুপুর আড়াইটার দিকে একজন প্রতক্ষ্যদর্শী জানান, বিমানবন্দরের মূল ভবনের দোতালায় এয়ার ইন্ডিয়ার অফিসে বৈদ্যুতিক শটসার্কিটের মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তের মধ্যে আগুন পাশের আরও দু’টি অফিস কক্ষে ছড়িয়ে পড়ে। কর্তব্যরত কর্মকর্তারা অগ্নিনির্বাপণ গ্যাস দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যর্থ হয়। ছুটে আসে বিমানবন্তরের নিজস্ব ফায়ার ইউনিট। তার সঙ্গে যোগ দেয় ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিট। প্রতক্ষ্যদর্শী বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মহির উদ্দিন জানান, মালদ্বীপ এয়ার লাইন্সে তার ভারতের চেন্নাই যাওয়ার কথা ছিল। বিকাল ৪টা ২০ মিনিটে ফ্লাইট ছিল। ‍দুপুর দেড়টার দিকে তার বোর্ডিং সম্পন্ন হয়ে ইমিগ্রেশন কার্ড চলার সময় হঠাৎ ফায়ার এলার্ম বেজে ওঠে। ওই মুহূর্তে ইমিগ্রেশন থেকে তার পাসপোর্টটি ফেরৎ দেয়ায় হয়। ইমিগ্রেশনের সব কাজ বন্ধ করে কর্মকর্তারা বেরিয়ে যেতে থাকেন। তিনিসহ অন্যান্য যাত্রীরাও বেরিয়ে যেতে থাকেন।
বিমানের ফ্লাইট অনুসন্ধান সূত্রে জানা গেছে, দুপুর দেড়টার পর থেকে বেলা সোয় তিনটা পর্যন্ত সকল ধরনের ফ্লাইট ওঠানামা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যেসব ফ্লাইট শাহজালালে নাসার কথা ছিল ওইসব ফ্লাইট চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দর ও কলকাতার দমদম বিমানবন্দরে নামানো হচ্ছে। বিকাল সোয়া ৩টা পর্যন্ত বিমানবন্দরে আগুন নিভানোর খবর ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে জানানো হয়নি।
ফায়ার সার্ভিস নিয়ন্ত্রণ কক্ষের এক কর্মকর্তা জানান, খবর পেয়ে তাদের দশটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভানোর কাজ শুরু করেছে। আগুনের কারণে বিমানবন্দরে প্রচুর ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়েছে। বর্তমানে বিমানবন্দরে বহির্গমন কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। ঠিক কোথা থেকে কীভাবে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে-সে বিষয়ে কোনো তথ্য দিতে পারেননি তিনি। তাৎক্ষণিকভাবে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষয়ক্ষতির বিষয়েও কিছু জানা যায়নি।
বিমানবন্দরের আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) পুলিশ সুপার তারিক আহমেদ বলেন, আগুনের ফলে প্রচুর ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়েছে। এর পর পরই বহির্গমনের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। আগুন নেভাতে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা কাজ করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *